বুধবার, ০১ জুলাই ২০২০, ১১:৩৭ পূর্বাহ্ন

দাঁতের কালো দাগ দূর করবেন যেভাবে

দাঁত সৌন্দর্যের একটি অংশ। সুন্দর দাঁত মানেই সুন্দর হাসি। আর এই সুন্দর দাঁত কে না চায়। কিন্তু আমাদের কিছু বদ অভ্যাসের কারণে সুন্দর দাঁত পরিণত হয় অসুন্দর ও নোংরাতে। মাড়ি থেকে রক্ত পরা থেকে শুরু করে, দাঁত কালচে হয়ে যাওয়া ইত্যাদি সমস্যায় ভুগতে হয়।

আসুন জেনে নেই কেন কালো হয়ে যায় দাঁত এবং তার প্রতিকার।

☞ধূমপান
ধূমপান দাঁতকে কালো করতে পারে। যারা সিগারেট খান তাদের ঠোঁট এবং মাড়ির কালোভাবের সমস্যাও হতে পারে। এই ধূমপানের আসক্তি হাসির সৌন্দর্য নষ্ট করতে পারে। কখনো কখনো পুরো কালো হওয়ার পরিবর্তে দাঁতে কয়েকটি গাঢ় দাগ দেখা যায়। এগুলো মুখের ক্যান্সারের প্রথম লক্ষণও হতে পারে। তাই যদি এমন কোনো চিহ্ন দেখেন তবে অবিলম্বে যত্নবান হন।

☞বেশি পরিমাণে মেলানিন জমে থাকলে
মেলানিন হল এক ধরণের উপাদান যা ত্বককে প্রাকৃতিক করে তোলে এবং যা ত্বকের সুরকে গভীর করে। সুতরাং আপনার ত্বক যদি কালো হয় তবে আপনার দাঁত গোলাপী নয়, হালকা কালো হয়। তবে দাঁতে যদি কেবল কয়েকটি কালো দাগ দেখা দেয় তবে আপনার অবশ্যই ডাক্তার দেখাতে হবে। কারণ এটি স্বাভাবিক রোগ নয়।

☞কিছু ওষুধ ব্যবহার করে
গবেষণা পরামর্শ দেয় যে, কিছু ওষুধ যেমন- অ্যান্টি-ডিপ্রেশনস, ম্যালেরিয়ার ওষুধ ও অ্যান্টিবায়োটিকগুলো দাঁতকে কালো করে দেয়। যদি দাঁতে কালো দাগ দেখতে পান এবং আপনি এরকম কোনো ওষুধ খাচ্ছেন যা আপনার দাঁত কালো করে দিচ্ছে, তবে ডাক্তারকে এ সম্পর্কে বলা উচিত। আর সঠিক পরামর্শ নেয়া উচিত।

☞জিঙ্গিভাইটিসের কারণে
দাঁতের একটি বিশেষ রোগ রয়েছে, যাকে অ্যালসারেটিভ জিঙ্গিভাইটিস বলা হয়। এটি এক ধরনের সংক্রমণ, যার কারণে মাড়ির ব্যথা, জ্বর এবং দুর্গন্ধের সমস্যা হতে পারে। এই সংক্রমণের কারণে মাড়ির টিস্যু মারা যেতে পারে। যার কারণে তাদের রঙ কালো হতে পারে। আপনার যদি জিঞ্জিভাইটিসের সমস্যা হয় তবে এটি যত তাড়াতাড়ি সম্ভব চিকিত্সা করা খুব জরুরি। অন্যথায় এটি দাঁতকে চিরকালের জন্য কালো করে তুলতে পারে।

প্রতিকার
১. প্রতিদিন সকালের নাস্তার পর, এবং রাত্রে ঘুমাবার আগে দাঁত ব্রাশ করুন। দিনে মাত্র একবার দাঁতব্রাশ করলে তা অবশ্যই রাত্রে ঘুমাবার আগে। দেড় থেকে দুমিনিট দাঁত ব্রাশ করা শ্রেয়, এর বেশি বা কম নয়।

২. ফ্লস দিয়ে দাঁতের ফাঁকার মধ্যে জমে থাকা ময়লা পরিস্কার করতে পারেন। যেকোনো মিষ্টি জাতীয় খাবার, চকলেট, চুইংগাম, কেক, ফাস্টফুড খাবার পর অবশ্যই পানি দিয়ে ভালো ভাবে কুলকুচি করবেন।

৩. মাউথওয়াশ ব্যবহার করতে পারেন, তবে টানা ব্যবহার করবেন না, ৪/৫ দিন ব্যবহারের পর আবার ৪/৫ দিন ব্যবহার বাদ দিন। অতিরিক্ত ফ্লুরাইড ব্যবহার করে এমন টুথপেষ্ট লম্বা সময় ব্যবহার করবেন না, এতে আপনার দাঁতে সাদা দাগ পড়াসহ ভেঙে যেতে পারে।

৪. সঠিক পদ্ধতিতে দাঁত ব্রাশ করবার নিয়মটি আপনার দাঁতের ডাক্তারের কাছ থেকে ভালোভাবে শিখে নিন। দাঁতে সমস্যা থাকুক চাই না থাকুক, বছরে অন্তত ২/১ বার দন্ত চিকিৎসককে দেখানো উচিত।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2017 CoxBDNews.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: কপি করা চলবে না