শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১০:২৮ পূর্বাহ্ন

মামলার খরচ জোগাতে ডাকাতি!

মামলার খরচ জোগাতে ডাকাতি!

সিএন ডেস্ক।।

ডাকাতির প্রস্তুতি নেওয়ার সময় চট্টগ্রাম মহানগরীর সাহেবপাড়া কলাবাগান মাঠের ভেতর থেকে ৬ ডাকাতকে আজ সোমবার ভোরে গ্রেপ্তার করেছে সদরঘাট থানা পুলিশ। এ সময় তাদের কাছে একটি কিরিচ ও তিনটি ছুরি জব্দ করা হয়। এরা হলেন, আমির হোসেন (২৪), মো. ফোরকান (২২), মো. রনি (২১), মো. ফরিদ প্রকাশ বুলু (২১), মো. নূর জামান (২১) ও মো. এমরান প্রকাশ সজল (১৯)।

সদরঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. নেজাম উদ্দিন জানান, গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে ফোরকান ও আমির হোসেন সদরঘাট থানার ইদ্রিস হত্যা এবং রনি একই এলাকার স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা ইব্রাহিম হোসেন মানিক হত্যা মামলার আসামি।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা জানায়, ওই দুই হত্যা মামলা পরিচালনা করতে তাদের অনেক টাকার প্রয়োজন হচ্ছে। তাই টাকা জোগাড় করতে তারা ডাকাতি শুরু করেছে।

সদরঘাট থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মুহাম্মদ রুহুল আমীন বলেন, আমাদের কাছে তথ্য আছে ইদ্রিস ও ইব্রাহিম হত্যা মামলায় এখনো ৫ আসামি কারাগারে আছে। ডাকাতি করে পাওয়া টাকায় ভালো আইনজীবী নিয়োগ করে তারা গ্রেপ্তার পাঁচজনকেও বের করে আনার পরিকল্পনা করেছিল।

তিনি আরও বলেন, আমরা জানতে পেরেছি, সদরঘাট থানার বিভিন্ন নৌঘাটে জামায়াত শিবিরপন্থী শ্রমিক নেতাদের সঙ্গে এই ডাকাতদের যোগাযোগ রয়েছে।

প্রসঙ্গত, আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দ্বন্দ্বে ২০১৬ সালের ৭ই এপ্রিল সাহেবপাড়ায় গুলি করে ও কুপিয়ে মো. ইদ্রিসকে হত্যা করা হয়। একই বছরের ১১ই ডিসেম্বর স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতা ইব্রাহিম হোসেন মানিককে কুপিয়ে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। প্রস্তুতি নেওয়ার সময় চট্টগ্রাম মহানগরীর সাহেবপাড়া কলাবাগান মাঠের ভেতর থেকে ৬ ডাকাতকে আজ সোমবার ভোরে গ্রেপ্তার করেছে সদরঘাট থানা পুলিশ। এ সময় তাদের কাছে একটি কিরিচ ও তিনটি ছুরি জব্দ করা হয়। এরা হলেন, আমির হোসেন (২৪), মো. ফোরকান (২২), মো. রনি (২১), মো. ফরিদ প্রকাশ বুলু (২১), মো. নূর জামান (২১) ও মো. এমরান প্রকাশ সজল (১৯)।

সদরঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. নেজাম উদ্দিন জানান, গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে ফোরকান ও আমির হোসেন সদরঘাট থানার ইদ্রিস হত্যা এবং রনি একই এলাকার স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা ইব্রাহিম হোসেন মানিক হত্যা মামলার আসামি।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা জানায়, ওই দুই হত্যা মামলা পরিচালনা করতে তাদের অনেক টাকার প্রয়োজন হচ্ছে। তাই টাকা জোগাড় করতে তারা ডাকাতি শুরু করেছে।

সদরঘাট থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মুহাম্মদ রুহুল আমীন বলেন, আমাদের কাছে তথ্য আছে ইদ্রিস ও ইব্রাহিম হত্যা মামলায় এখনো ৫ আসামি কারাগারে আছে। ডাকাতি করে পাওয়া টাকায় ভালো আইনজীবী নিয়োগ করে তারা গ্রেপ্তার পাঁচজনকেও বের করে আনার পরিকল্পনা করেছিল।

তিনি আরও বলেন, আমরা জানতে পেরেছি, সদরঘাট থানার বিভিন্ন নৌঘাটে জামায়াত শিবিরপন্থী শ্রমিক নেতাদের সঙ্গে এই ডাকাতদের যোগাযোগ রয়েছে।

প্রসঙ্গত, আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দ্বন্দ্বে ২০১৬ সালের ৭ই এপ্রিল সাহেবপাড়ায় গুলি করে ও কুপিয়ে মো. ইদ্রিসকে হত্যা করা হয়। একই বছরের ১১ই ডিসেম্বর স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতা ইব্রাহিম হোসেন মানিককে কুপিয়ে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা।

নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2017 CoxBDnews.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com